Flash News
News add
Image

মালদার বার্লো বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ে নির্ভয়াদির উদ্যোগে স্বচ্ছতা অভিযানে ৮৪ জন বিএসএফ জাওয়ান

News add

 

 

সরকারি বিদ্যালয়ের বেহাল দশা পরিদর্শনের পর এবারে অভিনব উদ্যোগে স্বচ্ছতা অভিযানে উদ্যোগী হলেন বিধায়কা শ্রীরূপা মিত্র চৌধুরী। বিধায়িকার অনুরোধে বিএসএফের ৪৪ নম্বর এবং১৫৯ নম্বর ব্যাটেলিয়ানের মোট ৮৪ জন সু প্রশিক্ষিত জওয়ানের সহযোগিতায় স্বচ্ছ ভারত অভিযানের অঙ্গ হিসেবে সুসম্পূর্ণ করা সম্ভবপর হয় এই সাফাই অভিযান। 

মালদা শহরের খ্যাতনামা স্কুল গুলির মধ্যে অন্যতম বার্লো বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়। বিদ্যালয়ের এ বছর ১৫০ বছর পূর্তি হতে চলেছে। মূলত এই উপলক্ষেই বিধায়িকার ব্যক্তিগত উদ্যোগে স্বচ্ছতা অভিযানের পরিকল্পনা গ্রহণ করা হয়েছে। বিদ্যালয়ে চল্লিশের অধিক শ্রেণীকক্ষ এবং করিডর, ১৬টি শৌচাগারে অস্বচ্ছতার ছাপ রয়েছে। পাশাপাশি বিদ্যালয়ের আনাচে-কানাচে জমে রয়েছে আবর্জনার স্তূপ, জন্মেছে আগাছা। বহু প্রাচীন এই বিদ্যালয়ের ছাদও যথেষ্ট উঁচু। ফল স্বরূপ সাধারণ সাফাই কর্মীদের পক্ষে তা নিয়মিত রূপে সঠিকভাবে পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন করা সম্ভবপর হয়ে ওঠে না। এর পাশাপাশি সরকারি বিদ্যালয়ে সাফাই কর্মচারীদের কোনো স্থায়ী পদ নেই। স্বল্প শুল্কের ভিত্তিতে এই সরকারি বিদ‍্যালয়গুলির পরিচর্যা পরিচালিত হয়। ফলত গাছপালার ছাঁটাই, আগাছা নির্মূল, নোংরার স্তুপ নির্মূল, বিদ্যালয় ভবনের পরিষ্কার পরিচ্ছন্নতা ইত্যাদি কাজে ফাঁক থেকেই যায়।

সমগ্র দেশব্যাপী আসন্ন ৭৫ তম স্বাধীনতা দিবস উপলক্ষে অমৃতকাল পালিত হচ্ছে। সেই খুশির অবসরে শহরের অন্যতম খ্যাতনামা বার্লো বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ে স্বচ্ছতা অভিযানে তৎপর হয়েছেন বিধায়িকা। সপ্তাহখানেক আগে তিনি বিদ্যালয়টি পরিদর্শনে আসেন। তখনই তিনি বিদ্যালয়ের অস্বচ্ছতা সম্পর্কে অবগত হন। যেই অস্বচ্ছতার সমস্যার সম্মুখীন হতে হয় বিদ্যালয়গুলিকে এবং সাথে ছাত্রছাত্রীদেরও। শীঘ্রই তিনি বিদ্যালয়ের স্বচ্ছতা অভিযানে তৎপর হন।

তবে খুব স্বভাবতই বিদ্যালয়ের স্বচ্ছতা অভিযানে বিএসএফ জাওয়ানেরা সামিল হওয়ায় মানুষের মনে প্রশ্ন জাগে। এ প্রসঙ্গে বিধায়িকা জানান, স্বাধীনতা দিবস উপলক্ষে দেশব্যাপী বিএসএফ জওয়ানেরা  বিভিন্ন জনমুখী কর্মসূচি, স্বচ্ছ ভারত কর্মসূচিতে সামিল হন। সেই প্রেক্ষাপটে বিধায়িকার অনুরোধে বিএসএফের ৪৪ নম্বর এবং ১৫৯ নম্বর ব্যাটেলিয়ানের ৮৪ জন সু প্রশিক্ষিত জাওয়ানের সহযোগিতায় এত বড় এই অসাধ্য সাফাই কর্মসূচি সম্পূর্ণ করা সম্ভবপর হয়েছে। বিএসএফ জাওয়ানেরা শারীরিক দিক থেকে যেমন উপযুক্ত, তেমনি তাদের উপযুক্ত প্রশিক্ষণ রয়েছে, সাথে রয়েছে উপযুক্ত সরঞ্জাম। যা এই অসাধ্য কাজকে সম্পন্ন করতে সম্ভবপর করেছে। বিএসএফ জাওয়ানদের এমন উদ্যোগে অশেষ ধন্যবাদ জ্ঞাপন করেন বিধায়িকা। বিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দিলে আগামীতেও বিদ্যালয়ে স্বচ্ছতা অভিযান জারি থাকবে বলে জানান তিনি

News add
লাইফ স্টাইল