বিনোদন

বসে গেল ফরাক্কা কেদারনাথ ব্রিজের একপ্রান্ত, বন্ধ ভারী যান চলাচল, ক্ষতির সম্মুখীন ব্যবসায়ীরা

মুর্শিদাবাদের ফরাক্কার কেদারনাথ ব্রিজের একপ্রান্ত বসে যাওয়ায় আবারও বন্ধ ভারী যান চলাচল। বুধবার সকালে ঘটনাটি ঘটেছে মুর্শিদাবাদের ফরাক্কার কেদারনাথ ব্রীজে। 

সূত্রের খবর, আজ সকালে পথ চলতি বাসিন্দারা দেখতে পান কেদারনাথ ব্রীজে রাস্তা বসে আছে। তড়িঘড়ি খবর দেওয়া হয় ফরাক্কা থানার এনটিপিসি ফাড়ির পুলিশ প্রশাসনকে।

পুলিশ সুত্রে জানা যায়, আগামী ২৪ শে ডিসেম্বর পর্যন্ত প্রশাসন ভারী যান চলাচল বন্ধ করে দেয়। ব্রিজের উপর দিয়ে ছোট গাড়ি চলাচল করবে। 

ঝাড়খণ্ড থেকে মুর্শিদাবাদ ফরাক্কা হয়ে পশ্চিমবঙ্গে আসার একটি মাত্র পথ এই ব্রীজ। এই ব্রীজ বন্ধ থাকায় সমস্যায় পরেছেন স্থানীয় ব্যবসায়ীরা। কারণ এই পথ ধরেই ঝাড়খন্ড থেকে পাথর নিয়ে মালদা হয়ে তা উত্তরবঙ্গে চলে যায়। ফলে ব্রীজ বন্ধের জন্য প্রায় সমস্ত ব্যবসাই বন্ধ। আর যার ফলে ব্যবসায় কোটি কোটি টাকার ক্ষতির সম্মুখীন হতে হয় বলে জানিয়েছেন স্থানীয় গাড়ি মালিকরা।

স্থানীয় বাসিন্দাদের সুত্রে জানা যায়, কলকাতা বন্দরে জলের নাব্যতা ঠিক রাখতে ফরাক্কার ফিডার ক্যানেল কাটা হয়। সেই সময় ফরাক্কার পশ্চিম পাড়ের গ্রামের মানুষের যাতায়াতের জন্য ফরাক্কা কেদারনাথ ব্রিজ তৈরী করেছিলো ফরাক্কা ব্যারেজ কর্তৃপক্ষ। কিন্তু তারপর থেকে কোনরকম দেখভাল না হওয়ার কারণে আজ এই ব্রিজের বেহাল অবস্থা। ১৯৮০ সালের পর ফরাক্কা  কেদারনাথ ব্রিজের পশ্চিমপাড়ে এনটিপিসি তাপ বিদ্যুত কেন্দ্র ও অম্বুজা সিমেন্ট কোম্পানি আসে। ফারাক্কায় এই দুটি সংস্থা তৈরি হওয়ার ফলে তাদের যাতায়াতের জন্য ব্রিজের দেখভাল এনটিপিসি করছে। 

মূলত এটি মুর্শিদাবাদের ফরাক্কা হয়ে ঝাড়খন্ড ও বাংলার একমাত্র যোগাযোগের পথ। তাই ঘটনার খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে ছুটে আসে ফারাক্কা এনটিপিসি ও অম্বুজা সিমেন্ট কোম্পানির কর্তৃপক্ষ।